মেনু নির্বাচন করুন

গবাদি পশু ও মাছ চাষে ক্ষুদ্রঋণ

 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দুটি অধিদপ্তরের মাধ্যমে গবাদি পশু ও মাছ চাষের জন্য সরকার ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ শুরু করেছে, যা সুদমুক্ত।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস শনিবার তার নিজ নির্বাচনী এলাকার বেলকুচি উপজেলার বড়দুল ইউনিয়নে ২০ জন সুবিধাভোগীর মধ্যে ঋণের অর্থ বিতরণের মধ্য দিয়ে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

এ কার্যক্রমের জন্য ৬০ কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করেছে সরকার। এ তহবিল থেকে গরু ও মহিষ পালনের জন্য সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা, ছাগল ও ভেড়া পালনের জন্য সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা এবং হাঁস-মুরগি পালনের জন্য সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান।

তবে এ ঋণের পুরো অর্থ সুবিধাভোগীর হাতে দেওয়া হবে না। ঋণের তিন-চতুর্থাংশ অর্থ দিয়ে অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা সুবিধাভোগীর চাহিদা অনুযায়ী গবাদি পশু অথবা হাঁস-মুরগি কিনে দেবেন। অবশিষ্ট এক-চতুর্থাংশ অর্থ খাদ্য কেনার জন্য দেওয়া হবে।

দেশে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন এনজিও ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম চালিয়ে এলেও সরকার সরাসরিভাবে এ ধরনের উদ্যোগে সম্পৃক্ত হয়নি। তবে এনজিওগুলোর ক্ষুদ্রঋণের চড়া সুদ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা রয়েছে।

কর্মকর্তারা জানান, এ তহবিলের অর্থ সুবিধাভোগীদের মধ্যে সুদমুক্ত ঋণ হিসেবে বিতরণ করা হবে। প্রথম বছর ঋণের অর্থও পরিশোধ করতে হবে না। দ্বিতীয় বছর থেকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ঋণের অর্থ ফেরত দেওয়া শুরু করতে হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে লতিফ বিশ্বাস বলেন, "বর্তমান মানুষের কর্মসংস্থানের কথা বলে নির্বাচিত হয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে প্রাতিষ্ঠানিক চাকরির সুযোগ অত্যন্ত কম। এজন্য সবাইকে প্রাতিষ্ঠানিক চাকরিতে নিয়োগ দেওয়া সম্ভব নয়।

"এ কারণে সরকার বেকার ও শিক্ষিত যুবকসহ সাধারণ মানুষকে ঋণ দিয়ে পশুপালন ও মাছ চাষে আগ্রহী করে তুলছে। এরমাধ্যমে আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে সরকার দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে চায়।"